ব্লগিং করে অনলাইন এ কত টাকা আয় করা যায় এবং কিভাবে ? বিস্তারিত



Earn money by blogging –  অর্থাৎ ব্লগিং করে অর্থ আয় করুন । কিভাবে করবেন ?? 

আসসালামু ওয়ালাইকুম, সবাই ভালো আছেনতো ? 

আপনাদের জন্য আমি ব্লগিং, ব্লগার, ব্লগিং এর সুবিধা-অসুবিধা, ব্লগিং ক্যারীয়ার ইত্যাদি বিষয়ের উপর আজকের আর্টিকেলটা লিখছি । যারা ব্লগিং এর সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তারা আর্টিকেলটা সম্পূর্ন পড়ুন

 

ব্লগিং করে অনেক বেকার ভাইয়েরা এখন অনলাইনে প্রচুর বৈদেশিক অর্থ আয় করছে ।

হ্যা, এই কথাটা একবারেই সত্য । আপনারা ফেসবুক ব্রাউজ করার সময় সামনে  বিভিন্ন বিষয়ের উপর নিউজ কিংবা টিওটোরিয়াল এর লিংক দেখতে পাচ্ছেন, সাথে সাথেই ক্লিক করে সেই ওয়েব সাইটে চলে যাচ্ছেন । আপনি হয়ত যানেনা যে, আপনি তখনই ওই  ওয়েবসাইটের একজন ট্রাফিক হয়ে যাচ্ছেন । এবং আপনি এবং আপনার মতন অন্যান্য ভিজিটররা কতক্ষন  ওই সাইটে থাকছে , কোন পোস্টটা কতক্ষন ধরে পড়ছে, কোন কোন পেজএ ভিজিট করছে এবং প্রতিটা ভিজিটরের IP ( ইন্টারনেট প্রোটকল )  ঐ ওয়েব সাইটের DNS অর্থ্যাৎ ডোমেইন নেম সর্ভার এ রেকর্ড হয়ে যাচ্ছে ।

বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জির যেমন গুগোলইয়াহু, ইয়ানডেক্স সহ আরও অনেক সার্চ ইঞ্জিন আছে যেগুলো ক্রাউলারের মাধ্যমে ঐ ইনফরমেশন গুলো নিয়ে যাচ্ছে ।  সার্চ ইঞ্জিন গুলো প্রতিটা ওয়েব সাইটের কন্টেন্ট, ট্রাফি, কী-ওয়ার্ড ইত্যাদির ওপর বিচার করে ব্লগ কিংবা ওয়েব সাইট গুলোকে র‌্যাংক করছে । 

মনে করেন,, আপনি গুগোল এ সার্চ করলেন “ How to earn money online ” এখন আপনার সামনে এই কী-ওয়ার্ড এর উপর ৩০টা সার্চ-রেজাল্ট আসলো। এই ৩০টা সার্চ রেজাল্ট কিন্তু একটা ইন্ডিভিজুয়াল ব্লগএর না, ১২ টা ব্লগ থেকে ১২টা পোস্ট গুগোল আপনার সামনে এনে দেবে । 

এখন মনে করেন, সার্চ-রেজাল্ট এর প্রথম পেজএ প্রথমেই যে রেজাল্ট টা আছে সেটা আমাদের জনতা ব্লগ এ মিস্টার মোস্তাফিজ অর্থ্যাৎ আমি নিজে  “ How to earn money online ” এই কী-ওয়ার্ড এর উপর  একটা কন্টেন্ট লিখেছিলাম অনেক আগে । এখন জনতা ব্লগ সহ অন্যান্য যত ব্লগ এ  ” how to earn money online ”  এই কী-ওয়ার্ড এর উপর যত পোস্ট আছে ঐসব পোস্ট গুলোর মধ্যে জনতা ব্লগএ  আমার লিখা পোস্টটা গুগোল র‌্যাংকএ সবার আগে আছে বলেই গুগোল এ আপনি যখনই ” how to earn money online ”  বা এর কাছাকাছি কোন কী-ওয়ার্ড লিখে সার্চ করলেন  তখনই গুগোল  আমার ঐ পোস্টটা সবার আগে দেখালো ।

একটু সাধারনভাবে চিন্তা করুন –  প্রতিদিনই এই কী-ওয়ার্ড টা লিখে হাজার হাজার মানুষ গুগল এ সার্চ করছে ।  এখন আমাদের জনতা ব্লগ এর ঐ পোস্টটা যদি গুগোল এ র‌্যাংক এ সবার আগে থাকে তাহলে যত মানুষ গুগোল এ সার্চ করছে তারা প্রত্যেকেই জনতা ব্লগ ভিজিট করবে আমার লেখা ”অনলাইনে টাকা আয়ের প্রকাশনা টা পড়ার জন্য । আর যত মানুষ ভিজিট করবে আমাদের জনতা ব্লগ তত বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠবে এবং বাংলাদেশের অন্যতম একটা কমিউনিটিতে পরিনত হবে । আর এটা তখনই সম্ভব যখন আমাদের সব গুলো পোস্ট কে গুগোল সহ অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে ভাল র‌্যাংক করাব । র‌্যাংক করানো নিয়ে পরে বিস্তারিত আরেকটা আর্টিকেল লিখব । আপাতত শুধু এতটুকুই জেনে নেন যেমেন তেমন আর্টিকেল লিখে কোন লাভ নেই । আপনার ব্লগ তখনই জনপ্রিয় হবে যখন আপনার আর্টিকেল গুলো মানুষের উপকারে আসবে, কিংবা মানুষকে এন্টাটেইন করতে সক্ষম হবে।

ব্লগিং এ আয়ের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে গুগোল অ্যাডসেন্স । 

অন্য সব কথা বাদ দিলাম, মানলাম আপনি আপনার একটা ব্লগ আরম্ভ করেছেন এবং সেখানে খুব ভাল মানের আর্টিকেল লিখছেন ।  এবং  আপনি এটাও লক্ষ করলেন যে আপনার ব্লগ এর পোস্ট গুলো এভারেজ দিনে এক হাজার বার দেখা হচ্ছে । সুতরাং এখনই তো আপনার কিছু টাকা আয় করার সময়, তাইনা ??

এখন কথা হলো আয়টা আসবে কোথা থেকে এবং কিভাবে ??

হ্যা, এই প্রশ্নটায় অনেকের মাথায় ঘুরপাক খায়, অনেকে অল্প অল্প  যানেন, অনেকে এক্সপার্ট, আবার অনেকেই কিছুই যানেনা ।  যারা যানেনা তাদের কাছে ব্যাপারটা একেবারেই অদ্ভূৎ । তাদের মনে তখন এই কথাটায় ঘুর পাক খেতে থাকে যে “আমার ব্লগে আমি কষ্ট করে আর্টিকেল লিখবো, ভিজিটর আসলে আসবে আমার ব্লগে, জনপ্রিও হলে হবে আমার ব্লগ । তাহলে আবার আমাকেই টাকা কে দেবে ??  আমার ব্লগ জনপ্রিয় হলে কার এত লাভ হবে ??

এই কথাটা আমার মাথায় ঘুরপাক খেতো যখন আমি ব্লগিং এর কিছুই বুঝতাম না ।  তারপর আস্তে আস্তে ব্লগিং এর উপর গুগোল করি , অনেক এক্সপার্টদের সাথে কথা বলি । তখন গুগোল অ্যাডসেন্স এর উপর একটা ধারনা আসে । যারা গুগোল অ্যাডসেন্স সম্পর্কে যানেনা তারা ইউটিউব এ গিয়ে “google adsence bangla tutorial” লিখে একটা সার্চ করেন, অনেক ভিডিও পেয়ে যাবেন ।

গুগোল  অ্যডসেন্স হলো গুগোলের একটি অ্যড ( বিজ্ঞাপন ) সার্ভিং প্রোডাক্ট । যার অ্যাড আপনি আপনার ব্লগে রাখলে আপনার ব্লগ এর ভিজিটর এবং ঐ এড গুলোতে ক্লিক এর পরিমানের উপর ভিত্তি করে একটা নির্দিষ্ট শতাংশ বৈদেশিক ডলার আপনার অ্যাডসেন্সেএকাউন্ট এ জমা হয়ে যাবে ।

জনতা ব্লগ এর গুগোল অ্যাডসেন্সে একাউন্ট

 

মনে করেন গুগোল আপনাকে ১০ সেন্ট ( ১০০ সেন্ট = ১ ডলার ) করে CPC ( Cost Per Click – অর্থাৎ প্রতি  ক্লিক এর জন্য গুগোল যত টাকা পে করে )  দিচ্ছে ।

যেহেতু ১০০ সেন্ট = ১ ডলার, সুতরাং আপনার ব্লগ এর অ্যাড গুলোতে যদি  দৈনিক ১০ টা করে ক্লিক পড়ে তাহলে ১ ডলার আসে । আর আপনার দৈনিক পেজ ভিউ যদি এক হাজার হয় তাহলে আপনার অ্যাড গুলোতে এভারেজ  ১৫-২০ টা ক্লিক পড়বেই । তার মানে আপনার গড়ে দৈনিক ১.৫ – ২ ডলার ইনকাম থাকছে প্রতিদিন । তাহলে মাসে দাড়ায় ৩০ – ৫০ ডলার ।বর্তমানে ১ ডলার = ৮০ টাকা ।  এ হচ্ছে নতুন অবস্থার কথা বললাম, যখন আপনার ব্লগএ মাত্র এক হাজার বার ভিজিট হচ্ছে দিনে । আপনি একটা নতুন ব্লগ ওপেন করে কয়েকটা আর্টিকেল লিখে যদি ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রূপে  শেয়ার করে দেন তাহলে এক হাজার ভিউ এমনিতেই চলে আসেআর যখন ব্লগ জনপ্রিয় হবে তখন ??

এবার প্রফেশনালভাবে চিন্তা করুন,,

একটু  ঠান্ডা মাথায় ভাবুন । আপনি যদি আপনার ব্লগের ঐ পোস্ট গুলোকেই এসইও করে গুগল  সার্চএ প্রথম পেজে আনতে পারেন তাহলে প্রতিদিন আপনি কত হাজার ভিজিটর পাচ্ছেন । আপনি যদি ভালো মানের কন্টেন্ট লেখেন  এবং তা যদি গুগোল এ র‌্যাঙ্ক করাতে পারেন তাহলে আপনি কি পরিমানের ভিজিটর পাবেন এবং গুগোল এডসেন্স থেকে আপনার প্রতিনিয়ত কত টাকা আয় হবে  তা আপনি কল্পনাও করতে পারবেননা। 

ব্লগিংএ সফলতা একটু সময়সাপেক্ষ ব্যাপার, ধৈর্য্য ধরুন,, 

ব্লগ খুলে কন্টেন্ট লিখতে থাকুন, এসইও করে গুগোলএ ঐ কনটেন্ট গুলোকে র‌্যাংক করান । তাহলে আজ ১০ জন, কাল ৫০ জন, পরের দিন ৫০০ জন, আরও সপ্তাখানেক পরে ১০০০ জন এভাবে করে আস্তে আস্তে আপনার কন্টেন্ট গুলো ভাইরাল হতে থাকবে । আর এভাবে এক সময় আপনার ব্লগএ প্রতিনিয়ত হাজার হাজার এক্টিভ এব রিটার্নিং ভিজিটর থাকবে । এ পর্যায়ে যেতে আপনার কমপক্ষে এক বছর সময় লাগবে যদি আপনি কোন ইনভেস্ট না করেন । আর যদি আপনি ইনভেস্ট করতে পারেন, অর্থ্যাৎ টাকা দিয়ে গুগোল, ফেসবুকএ বিজ্ঞাপন দেওয়া,, বিভিন্ন প্রফেশনাল এসইও  এক্সপার্ট দের দিয়ে ব্লগের এসইও করে নেওয়া , ইত্যাদি করতে আপনার টাকা ব্যায় করতে হবে , এবং দুই থেকে তিন মাসের মধ্যেই আপনার ব্লগ অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে যাবে । তবে এই জনপ্রিয়তা ধরে রাখার জন্য আপনাকে অবশ্যই ভাল মানের আর্টিকেল লিখে যেতে হবে । আর ব্লগ জনপ্রিয় হয়ে গেলে অনেকেই আপনার ব্লগে লিখার জন্য নিবন্ধন করবে যদি আপনি নিবন্ধন করার সুবিধাটা রাখেন । এতে করে ফিক্সড এবং রিটার্নিং ভিজিটর পাবেন ।

গুগোল অ্যাডসেন্স ছাড়াও লোকাল বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রচুর টাকা আয় করা যায়,,

আপনার ব্লগ যখন অনেক জনপ্রিয় হয়ে যাবে এবং দৈনিক হাজার হাজার ভিজিটর আপনার ব্লগে ভিজিট করবে তখন আপনি বাংলাদেশের কিছু লোকাল কোম্পানি, যেমন গ্রামীনফোন, রবি, বাংলালিংক ইত্যাদি বিভিন্নি কোম্পারি সাথে যোগাযোগ করতে পারেন । আবার আপনার ব্লগ অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে গেলে এরা নিজেরায় আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে এদের ব্যানার এবং কোন নতুন অফারের লিংক আপনার ব্লগে হাইলাইট করার জন্য । এর জন্য এরা আপনাকে প্রচুর টাকা অফার করবে । এটা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার, এর জন্য আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে এবং আপনার ব্লগটাকে অনেক বেশি জনপ্রিয় করে তুলতে হবে। 

বাংলাদেশের কয়েকটি ব্লগ কি পরিমার আয় করে তা দেখা যাক….

বাংলাদেশের কয়েকটি ব্লগ এর প্রতিদিনকার এবং মাসিক আয় আপনাদের সামনে  তুলে ধরলাম । এগুলো দেখলেই আপনা বুঝতে পারবেন যে ব্লগিং এ যদি ধৈর্য্য ধরে রাখতে পারেন তাহলে আপনার ক্যারীয়ার কোথায় গিয়ে দাড়াচ্ছে ।  

১/ সামহয়ারইনব্লগ.নেট

 

২/  টেকটিউন্স.কম.বিডি

 

৩/ ট্রিকবিডি.কম

  

এগুলো বাংলাদেশের অনেক জনপ্রিয় ব্লগ । আপনি যদি ব্লগিংএ  আপনার ক্যারীয়ার গড়তে চান তাহলে আপনাকে অনেক ধৈর্য্য ধরে একটু একটু করে আপনার ব্লগটাকে অডিয়েন্স এর কাছে জনপ্রিয় করে তুলতে হবে । আর এভাবে ব্লগ পরিচালনা করতে পারলেই আপনার ব্লগ এক সময়  টপ সারির ব্লগএ স্থান পেয়ে যাবে ।

 

ব্লগিং আরম্ভ করতে কি পরিমান টাকা খরচ হতে পারে !

খরচের ব্যাপারে চিন্তা করতে গিয়ে অনেকেই পিছিয়ে যান , কিন্তু বোকামীটা করে  ফ্যালেন এখানেই । আরে ভাই!! ব্লগ আরম্ভ করতে এক টাকাও খরচ হয়না । খরচ করার জন্য আপনার আগে আয়তো থাকা লাগবে নাকি ! ইনকাম না থাকলে খরচ করবেন কোথা থেকে ?? 

হ্যা খরচ তো  একটু করতেই হবে । আপনি যখন আপনার ব্লগএর জন্য ডোমেইন, সর্ভার হোস্ট ভাড়া নেবেন তখন আপনাকে চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা প্রতি বছর খরচ করতে হবে । কিন্তু আগেই ডোমেইন, হোস্ট না কিনে ফ্রী থেকেই শুরু করে  দ্যাখেন।  কিভাবে করবেন ??

১/ প্রথমে গুগোল এর ব্লগার একটা ব্লগ খুলেন ।

২/ অনেক থীম আছে, পছন্দের একটা নির্বাচন করেন ।

৩/ তারপর কন্টেন্ট লেখা শুরু করে দেন ।

৪/ কয়েকটা কন্টেন্ট লেখা হয়ে গেলে ব্লগটাকে গুগোল সার্চ-ইঞ্জিন এ ইনডেক্স করে দেন । 

৫/ তারপর  যখন আপনার ব্লগে ভিজিটর আসতে শুরু করবে তখন গুগোল অ্যাডসেন্স এ গিয়ে একটা একাউন্ট খোলেন । তারপর ঐ  অ্যাডসেন্স একাউন্ট এ আপনার ব্লগ এড করে দেন ।

এসবই একদম ফ্রী, এক টাকাও লাগবেনা । এরপর যখন আপনার ব্লগ এ ভাল ভিজিটর আসছে তখন দেখবেন আপনার অ্যডসেন্স একাউন্ট এ ডলার জমতে শুরু করে দিয়েছে । এরপর ১০০ ডলার হয়ে গেলে সেগুলোকে টাকা  হিসেবে আপনার ব্যাংক একাউন্টে উইথড্র করতে পারেবেন । তারপর ঐ টাকা দিয়ে  আপনার ব্লগের জন্য ডোমেইন , হোস্ট ভাড়া নেন ।  ব্যাপারটাতো একদম সীম্পল তাইনা ? আগে আয় করেন তারপর খরচ করেন ,, এইতো!! 

হ্যা শুরু করা সীম্পল । তবে মেইনটেন করা একটু কঠিন । আপনার ব্লগ খুলে ফেলে রাখলেইতো হবেনা , প্রথম প্রথম প্রতিদিন কমপক্ষে দুইটা করে ইউনিক কন্টেন্ট লিখতে হবে । সেগুলোতে ভিজিটর আনার জন্য ফেসবুকে বিভিন্ন যায়গায় শেয়ার করতে হবে । এসইও করতে হবে । নিয়মিত ব্লগে একটিভ থাকতে হবে । ব্লগ এর এনালাইসিস করে দেখতে হবে উন্নতি হচ্ছে কিনা । গ্লোবাল র‌্যাঙ্ক, গুগোল পেজ র‌্যাংক এ সামনে এগিয়ে আনার জন্য যাবতীয় যা কিছু করা দরকার করতে হবে । তারপরেইতো আপনার ব্লগ বাংলাদেশের প্রথম সারিতে যায়গা করে নেবে। 

ব্লগ কিভাবে শুরু করবেন! তা এর পরের আর্টিক্যাল একদম হাতে কলমে শিখিয়ে দেবো । আর যারা একটু অ্যাডভান্স লেভেলে আছেন তারা এখন থেকেই শুরু করে দেন । প্রয়োজন হলে গুগোল এ সার্চ করেন , ইউটিউবে ভিডিও দ্যাখেন – শত শত টিওটোরিয়্যাল পেয়ে যাবেন । 

অনেক কষ্ট করে লিখলাম । যদি উপকারে আসে আর যদি ধন্যবাদ দিতে ইচ্ছে করে তাহলে আমাদের  ফেসবুক পেজএ একটা লাইক দেন আর আর্টিক্যালটা শেয়ার করেন আপনার বন্ধুদের কাছে ।

ধন্যবাদ সবাইকে  🙂

মোস্তাফিজ আর রহমান

আসসালামু আলাইকুম,, আমি মোস্তাফিজ, ডাক নাম উল্লাস । আপনি আমার এবাউট পড়ছেন এর মানে আপনি এই মুহুর্তে আমার প্রোফাইলে আছেন এবং তার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ । আসলে আমি যখন থেকে ইন্টারনেট জগতের সাথে পরিচিত হয়েছি ঠিক তখন থেকেই অনলাইনে বিভিন্ন লেখকদের লেখা পড়তাম আর তাদের কাছ থেকেই অনুপ্রাণিত হয়ে বিভিন্ন ব্লগে লেখালেখি করার চেষ্টা করতাম । আমি ২০১২ তে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিলাম , তারপর ওয়েবসাইট এবং সফ্টওয়্যার ডেভেলপমেন্ট এর উপর কোর্স করে পড়াশুনার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ করতে থাকি । ব্লগিংএ খুব বেশি আকর্ষন থাকার কারনে ২০১৭ এর ৮ই অক্টোবর ”জনতা ব্লগ” এর প্রতিষ্ঠা করি। আমি সবসময় চেষ্টা করেছি ব্লগ এ মানসম্মত কিছু লোখার জন্য, তাই পাঠকদেরে কাজে লাগবে সেই সমস্ত টপিক গুলোর উপরেই লেখার চেষ্টা করি । ”জনতা ব্লগ” এর অন্যান্য লেখকদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই তাদের মুল্যবান প্রকাশনা গুলোর জন্য । একটা ব্লগের সবচেয়ে মুল্যবান সম্পদ হলো সেই ব্লগ এর নিয়মিত যারা লেখক এবং পাঠক আছেন, তাহাদের অবদান সত্যিই অনস্বীকার্য। তাই আপনাদের আবারও ধন্যবাদ জানাই ”জনতা ব্লগ” এর হাতে হাত রেখে পাশাপাশি চলার জন্য । আপনারা পাশে আছেন বলেই আমরা এ পর্যন্ত এগিয়ে আসতে পেরেছি ।

Related Posts