PHP ধারাবাহিক বাংলা টিউটোরিয়াল ( basic syntax ) – দ্বীতিয় পর্ব



ফেব্রুয়ারী 12, 2018

Php

5

687

PHP ধারাবাহিক বাংলা টিউটোরিয়াল ( basic syntax )

আগের টিওটোরিয়াল : PHP ধারাবাহিক বাংলা টিউটোরিয়াল – প্রথম পর্ব

 

অন্য কোন প্রসঙ্গে কথা না বাড়িয়ে সোজা কাজের কথায় আসা যাক। গত পর্বে আমরা দেখেছিলাম কিভাবে উইন্ডোজ এ XAMPP ইনস্টল করার মাধ্যমে কম্পিউটারটাকে একটা লোকাল সার্ভার এ রুপান্তর করা যায়। তো আজ থেকে আমরা PHP কোডিং শরু করবো । সো, গেট – সেট – এন্ড লেটস স্টার্ট  🙂 

কোড লোখার জন্য আমরা সবাই Sublime Text Editor ইনস্টল করেছিলাম তাইনা ! অনেকে আবার নোটপ্যাডেও কোড করতে পারো । এটা যার যার ব্যক্তিগত পছন্দ । প্রথমে তোমার কম্পিউটারের C: ড্রাইভে যাও, অর্থাৎ যে ড্রাইভে XAMPP ইনস্টল করেছ সেই ড্রাইভে, তারপর XAMPP  ফোল্ডার এর মধ্যে htdocs ফোল্ডার এর ভেতর যাও । এই htdocs  ফোল্ডারেই আমাদের যত কাজ । htdocs  এর ভেতরে একটা নতুন ফোল্ডার তৈরী করো ।  ফোল্ডারটার নাম তোমার ইচ্ছা মতন দিতে পারো, তুমি চাইলে তোমার গার্লফ্রেন্ড/বয়ফ্রেন্ড এর নামও দিতে পারো, তবে যাই দাওনা কেন! খেয়াল রাখবে ফোল্ডার এর নামের মধ্যে কোন ফাকা স্পেস যেন না থাকে । আমি আমাদের ব্লগ এর নাম  jonotablog  দিলাম, তোমরা তোমাদের ইচ্ছা মতন একটা দাও ।

PHP বাংলা টিওটোরিয়াল
PHP বাংলা টিওটোরিয়াল

এখানে একটা বিষয় খেয়াল কর আমি  htdocs  ফোল্ডারের ভেতরে  jonotablog নামে একটি নতুন ফোল্ডার তৈরী করেছি ঠিকই, কিন্তু কয়েকটা ফোল্ডার মার্ক করে দেখিয়েছি । এগুলো  আসলে আমার বানানো ফোল্ডার । এগুলো তোমাদের  htdocs  ফোল্ডার এর ভেতর থাকবেনা । আর তোমাদের প্রয়োজন ও নেই । তোমরা যাতে কনফিউশনে না পড় তাই আমি এগুলো কেটে দেখিয়ে দিয়েছি। 

এখন আমাদের কাজ হলো আমাদের নতুন jonotablog ফোল্ডার এর মধ্যে ।  আমি তোমাদের sublime text editor  ইনস্টল করতে বলেছিলাম কারন এর কিছু বিশেষ সুবিধা আছে । এবং ব্যবহারেও অন্যান্য এডিটর থেকে সহজ সরল ।  

প্রথমে  sublime text editor  ওপেন করো । তারপর jonotablog ফোল্ডারটাকে ড্রাগ করে  sublime text editor এর ভেতর ছেড়ে দাও ।

এতে করে htdocs  এর ভেতরে তুমি যে ফোল্ডারটা বানিয়েছো ঐ পুরা ফোল্ডারটায় Sublime text editor  এর মধ্যে ওপন হয়ে যাবে। আর সাবলাইম এর  বিশেষ সুবিধা হলো এর ভেতর থেকেই যে কোন টাইপের ফাইল  তৈরী করা, ফাইলের নাম  পরিবর্তন করা , ডিলেট করা, এমনকি নতুন ফোল্ডার তৈরী করা যায় । যা অন্য টেক্মট এডিটর গুলোতে ,যেমন  নোটপ্যাড এ এরকম সুবিধা নেই । তুমি যদি সাবলাইম ব্যাবহার করো তাহলে তোমাকে বার বার htdocs এর ভেতর তোমার বানানো ফোল্ডার এ যেতে হবে না, তুমি সাবলাইম এর ভেতর থেকেই তোমার বানানো ফোল্ডারের ভেতর অন্য ফোল্ডার এবং যে কোন ধরনের ফাইল  তৈরী, অথবা ডিলেট করতে পারবে । কিন্তু তুমি যদি নোটপ্যাড এ কাজ করো তাহলে নতুন ফাইল কিংবা ফোল্ডার বানানোর জন্য বার বার ঐ ফোল্ডার এর ভেতর যেতে হবে যা কোডিং এর সময় মোটেওে আরামদায়ক না  😈 ।

এখন Sublime  এর ভেতরে jonotablog ফোল্ডার এর ওপর পয়েন্টার নিয়ে মাউস এর ডান বাটনে চাপ দিলে একটা অপশন আসবে, ওখান থেকে New File  অপশনে ক্লিক করো । 

এরপর উপর এর  file থেকে save as  অথবা কী-বোর্ড থেকে CTRL+S চেপে ধরলে সেভ করার জন্য একটা ডায়ালগ বক্স দেখতে পাবা । এখন যে কোন নাম দিয়ে ফাইলটা সেভ করো । তবে সাবধান ! যেকোন নাম দাও ঠিক আছে, তবে নামের পরে যেন  .php  এক্সটেনশনটা থাকে,  এটা না দিলে ফাইলটা সাধারন টেক্সট ফাইল হিসেবে সেভ হবে। তখন আর php  কাজ করবে না ।

আমি myfile.php নামে আমার ফাইলটা সেভ করলাম, তুমি তোমারটা করো। 

এখন খেয়াল করো , আমরা যদি আমাদের বানানো নতুন ফোল্ডারটার মধ্যে যায় অর্থাৎ htdocs ফোল্ডার এর ভেতরে আমার বানানো নতুন jonotablog  ফোল্ডারে যদি যায় তাহলে দেখা যাবে myfile.php নামের একটা php ফাইল তৈরী হয়ে হয়ে গেছে । 

এখন যেকোন একটা ব্রাউজার ওপেন করা যাক, আমি মোজিলা ফায়ারফক্স ওপেন করলাম । এখন আমাদের লোকাল সার্ভার অর্থাৎ আমাদের C: ড্রাইভারের ভেতরে xampp ফোল্ডার এর ভেতরের htdocs ফোল্ডারটায় হলো আমাদের লোকাল সার্ভার । আর ব্রাউজার থেকে এই লোকাল সর্ভার এ এক্সেস করার জন্য আমাদের ব্রাউজার এর এড্রেসবারে localhost লিখে এন্টার চাপ দিলে xampp এর homepage ওপেন হযে যাবে ।

এখন আমরা যদি আমোদের বানানো ফোল্ডারটাতে  এক্সেস করতে চাই, তাহলে localhost এর পর স্ল্যাস ( / ) দিয়ে ফোল্ডারের নাম লিখতে হবে । যেমন: localhost/jonotablog এরপর এন্টার চাপলেই আমাদের বানানো ফোল্ডার টা ব্রাউজার এ ওপেন হয়ে যাবে। 

ছবিতে দেখ আমি যখন localhost/jonotablog  লিখে এন্টার দিয়েছি তখন আমাদের jonotablog  ফোল্ডারটা ওপেন হয়ে গিয়েছে, এবং ফেল্ডারের মধ্যে যে ফাইল গুলো আছে সব দেখা যাচ্ছে । এখন আমাদের jonotablog ফোল্ডারে এর ভেতর myfile.php  ফাইলটাতে এক্সেস করার জন্য ব্রাউজার এর এড্রেসবারে লিখতে হবে  localhost/jonotablog/myfile.php । এটা লিখে এন্টার দিলেই আমাদের myfile.php ব্রাউজারে এক্সেস হবে, এবং ফাইল এর ভেতর কিছু লেখা থাকলে তা ব্রাউজার এর পর্দায় প্রদর্শিত হবে । 

বোঝার জন্য আমি myfile.php তে কিছু একটা লিখলাম, যেমন :

 

এরপর যখন ব্রাউজার এর এড্রেসবার এ localhost/jonotablog/myfile.php লিখে এন্টার দিলাম তখন ব্রাউজারে আমারে myfile.php ফাইল এর ভেতরে যা লিখা আছে তা ব্রাউজার এর পর্দায় দেখা গেল, যেমন :

 

আরেকটা বিষয় খেয়াল করো । আমাদের jonotablog  ফোল্ডার এর ভেতর যদি কোন index.php নামের ফাইল থাকতো তাহলে ব্রাউজার এর এড্রেসবারে  localhost/jonotablog  লিখে এন্টার চাপলে কিন্তু  jonotablog  এর ভেতর অন্য ফাইল দেখা যেতনা । ডিরেক্টলি  index.php ফাইলটা ওপেন হয়ে যাবে।  বোঝানোর জন্য আগের মত করেই আমি jonotablog  ফোল্ডার এর ভেতর index.php নামের আরেকটা ফাইল তৈরী করলাম । এবং ফাইলটাতে কিছু লিখলাম । যেমন: 

 

এরপর ব্রাউজারের এড্রেসবারে লিখলাম localhost/jonotablog । খেয়াল করো, এবার কিন্তু আমি কোন ফাইল এর নাম লেখিনাই । আগেরবার jonotablog ফোল্ডার এ কোন index.php ফাইল ছিলনা, তাই  localhost/jonotablog দিলে jonotablog ফোল্ডারটা ব্রাউজারে ওপেন হয়েছিল এবং এর ভেতরে যা কিছু ছিল তা ডিরেক্টরি আকারে দেখা যাচ্ছিল । কিন্তু এখন jonotablog ফোল্ডার এর ভেতর একটা index.php ফাইল আছে। তাই আমি  ব্রাউজারের এড্রেসবারে localhost/jonotablog লিখে এন্টার দেওয়ার সাথে সাথেই অটোমেটিকভাবে jonotablog এর ভেতরে থাকা index.php ফাইলটা ব্রাউজারে এক্সেস হয়ে গেল এবং এই index.php ফাইলে যা লেখা আছে  তাই ব্রাউজার এর পর্দায় দেখা গেল । যেমন: 

 

 

 

বন্ধুরা এতক্ষন আমি তোমাদের বুঝালাম ব্রাউজার থেকে লোকাল সার্ভার এর ভেতরে ডিরেক্টরি গুলো এবং এর ভেতরের ফাইল গুলোতে কিভাবে এক্সেস করা যায় ।  এতে করে আমরা বুঝতে পারলাম যে কোন ফোল্ডরের মধ্যে index.php ফাইল থাকলে তা ব্রাউজারে অটোমেটিকে এক্সেস হয় । index ফাইল ছাড়া অন্য কোন ফাইল এ এক্সেস করতে হলে ফোল্ডারের পর স্ল্যাস দিয়ে সেই ফাইলের নাম লিখতে হয় । আর এটা খুবই গুরুত্বপূর্ন বিষয় যা নতুনদের মধ্যে অনেকেই বুঝতে পারেনা, তাই ভেঙ্গে ভেঙ্গে বুঝিয়ে দিলাম । এতক্ষন PHP  ফাইল নিয়ে কাজ করেছি, কিন্তু PHP  কোড নিয়ে কিছু দেখায়নি। তো চলো  আমাদের প্রথম PHP কোড লেখা যাক । তো আমি আপাতত index.php file এই কোড লিখবো ।  এবং আউটপুট দেখার জন্য ব্রাউজারের এড্রেসবারে localhost/jonotablog লিখে ইনডেক্স ফাইলে এক্সস করবো। 

 

PHP ব বেসিক সিনট্যাক্স বা সংকেত :

echo() স্টেটমেন্ট :

echo এর মাধ্যমে পিইএচপি এর ভেতরের স্ট্রীং কিংবা যেকোন ডেটা আউটপুট করানো হয় ।

<?php পিএইচপি কোড;  ?>  এর ভেতরেই PHP কোড লেখা হয় এবং সেটাকে আউটপুট করানোর জন্য echo ব্যাবহার করা হয়।

 

print() স্টেটমেন্ট :

print() দিয়েও এখানে দেয়া ডেটার আউটপুট ব্রাউজারে দেখা যায়। এটার কাজও অনেকটা echo  এর মতই , তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে print() এর বিকল্প নেই ।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে echo() স্টেটমেন্ট ব্যবহার করা হয় কারন এটা বেশি দ্রুত print() স্টেটমেন্ট নিয়ে পরে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে । আপাতত  বোঝার সুবিধার্থে  শুধুমাত্র echo() এর মাধ্যমেই কাজ করি । 

পিএইচপি কোড এক্সকিউট কাজ করাতে অবশ্যই ফাইলটি সেভ করার সময় .php এক্সটেনশন দিয়ে সেভ করতে হবে। যদি .html থাকে তাহলে পিএইচপি কোড execute হবেনা।

* পিএইচপি কোড এর প্রতিটি অংশ <?php চিহ্ন দিয়ে শুরু এবং ?> চিহ্ন দিয়ে শেষ হবে।

*প্রতিটি আলাদা instruction(code line) সেমিক্লোন দ্বারা শেষ হবে।  যেমন  <?php echo “hello World” ;  ?> 

ওকে এবার তোমার কোড এডিটর (সাবলাইম/নোটপ্যাড বা তুমি যা ব্যাবহার করো ) তা ওপেন করো এবং নিচের মত লিখো ।

<?php
   echo "Hello  World,, i am learning php programming language";
?>

প্রদর্শন: Hello  World,, i am learning php programming language

 

লক্ষ করো ,, আমারা php  ব্লক এর ভেতর একটা স্ট্রিং লিখেছি – “Hello  World,, i am learning php programming language” 

মনে রাখবে,,  php ব্লক এর ভেতরে তুমি তোমার ইচ্ছা মত কিছুই লিখে দিতে পারবা না । যেহেতু php একটি  প্রোগ্রামীং ল্যাঙ্গুয়েজ সুতরাং এর নিয়মানুযায়ি তোমাকে কোড লিখতে হবে । আর তুমি যদি php ফাইল এর ভেতর php  ব্লক এর বাহিরে কিছু লিখ সেটাও আউটপুট হবে, তবে তা HTML আকারে থাকবে। PHP  কোড তখনই হবে যখন <?php ব্লক ?> এর ভেতরে কোড লিখবে , এবং তা php এর নিয়ম মেনেই লিখতে হবে। 

PHP ব্লক এর ভেতর সিঙ্গেল কোটেশন ( ‘ . . . . ’ ) অথবা ডাবল কোটেশন ( “ . . .  ) এর মধ্যে কোন কিছু লিখা থাকলে তাকেই স্ট্রিং বলা হয়, যেমন :  <?php  Hello World ; ?>  অথবা <?php   HelloWorld ’ ; ?এখানে কিন্তু আমি Hello World কে স্ট্রিং আকারে লিখেছি, কিন্তু তা echo করিনি । আর echo না করাতে hello world শব্দটা প্রদর্শিত হবেনা ।

এখানে যদি আমি Hello World কে কোটেশন ছাড়া লিখতাম তাহলে কিন্তু আউটপুটে ইরোর দেখা যেত, কারন এটা PHP এর নিয়মের বাইরে । 

আজকের টিওটোরিয়ালটা অনেক বড় হয়ে গিয়েছে, তাই আগামী টিওটোরিয়াল গুলো ছোট করার চেষ্টা করবো, তোমরা ধৈর্য্য সহকারে টিওটোরিয়াল গুলো পড় এবং বেশি বেশি প্রাক্টিস করো । কোন কিছু না বুঝলে কমেন্ট সেকশন এ প্রশ্ন করো ।

আজ এ পর্যন্তই । আগামী টিওটোরিয়ালের আপডেট পেতে ফেসবুকে আমাদের জনতা ব্লগ পেজ এ লাইক দিয়ে কানেক্ট থাকো ।

 

পরবর্তী টিওটোরিয়াল : PHP বাংলা টিউটোরিয়াল, PHP VARIABLES – তৃতীয় পর্ব

 

মোস্তাফিজ আর রহমান

আসসালামু আলাইকুম,, আমি মোস্তাফিজ, ডাক নাম উল্লাস । আপনি আমার এবাউট পড়ছেন এর মানে আপনি এই মুহুর্তে আমার প্রোফাইলে আছেন এবং তার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ । আসলে আমি যখন থেকে ইন্টারনেট জগতের সাথে পরিচিত হয়েছি ঠিক তখন থেকেই অনলাইনে বিভিন্ন লেখকদের লেখা পড়তাম আর তাদের কাছ থেকেই অনুপ্রাণিত হয়ে বিভিন্ন ব্লগে লেখালেখি করার চেষ্টা করতাম । আমি ২০১২ তে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিলাম , তারপর ওয়েবসাইট এবং সফ্টওয়্যার ডেভেলপমেন্ট এর উপর কোর্স করে পড়াশুনার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ করতে থাকি । ব্লগিংএ খুব বেশি আকর্ষন থাকার কারনে ২০১৭ এর ৮ই অক্টোবর ”জনতা ব্লগ” এর প্রতিষ্ঠা করি। আমি সবসময় চেষ্টা করেছি ব্লগ এ মানসম্মত কিছু লোখার জন্য, তাই পাঠকদেরে কাজে লাগবে সেই সমস্ত টপিক গুলোর উপরেই লেখার চেষ্টা করি । ”জনতা ব্লগ” এর অন্যান্য লেখকদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই তাদের মুল্যবান প্রকাশনা গুলোর জন্য । একটা ব্লগের সবচেয়ে মুল্যবান সম্পদ হলো সেই ব্লগ এর নিয়মিত যারা লেখক এবং পাঠক আছেন, তাহাদের অবদান সত্যিই অনস্বীকার্য। তাই আপনাদের আবারও ধন্যবাদ জানাই ”জনতা ব্লগ” এর হাতে হাত রেখে পাশাপাশি চলার জন্য । আপনারা পাশে আছেন বলেই আমরা এ পর্যন্ত এগিয়ে আসতে পেরেছি ।

Related Posts